আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিয়ন্ত্রণে নিউ জিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস

0


নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ এলাকায় শুক্রবার সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের প্রেক্ষিতে দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন আধা-স্বয়ংক্রিয় (সেমি-অটোমেটিক) অস্ত্র নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। সামগ্রিকভাবে আগ্নেয়াস্ত্র আইন সংস্কারের বিষয়েও পরিকল্পনা রয়েছে তার। বিশেষজ্ঞরা তাকে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন। তাদের আশঙ্কা, বেসামরিক ব্যক্তিদের কাছে অস্ত্র বিক্রির সুযোগ উন্মুক্ত রাখার পক্ষে কাজ করা ‘গান লবি’ এ ধরনের সংস্কার বাস্তবায়নে বাধা হয়ে উঠতে পারে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, আগামী সোমবার এসব সংস্কার নিয়ে নিউ জিল্যান্ডের মন্ত্রিসভায় আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।
শুক্রবার (১৫ মার্চ) নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ এলাকার দুইটি মসজিদে বন্দুকধারীর হামলা হয়। এদের একটি শহরের হাগলি পার্কমুখী সড়ক দীন অ্যাভিনিউতে অবস্থিত আল নূর মসজিদ। আরেকটি মসজিদ লিনউডে অবস্থিত। দেশটির পুলিশ কমিশনার মাইক বুশ জানিয়েছেন, নিহতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৪৯ জনে। এদের মধ্যে আল নূর মসজিদেই নিহত হয়েছেন ৪১ জন। আর বাকিরা প্রাণ হারিয়েছেন লিনউডের মসজিদে। যাদের মধ্যে রয়েছে পাঁচ বছরের কম বয়সী দুই শিশু। আহত হয় মোট ৪৮ জন।
নিউ জিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন জানিয়েছেন, আগামী সোমবার মন্ত্রিসভায় অস্ত্রবিষয়ক আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকবে বৈধ অস্ত্রকে সামরিক বাহিনীর ব্যবহৃত অস্ত্রের পর্যায়ে উন্নত করে তোলার সুযোগ বন্ধের বিষয়টি। সামরিক বাহিনীর ব্যবহার্য অস্ত্রের মতো সক্ষমতা আছে এমন বন্দুক সহজে বৈধ পথে পাওয়া কঠিন। কিন্তু অস্ত্র ব্যবহারকারীরা, বৈধ অস্ত্র কিনে পরবর্তীতে নিজেরাই সেটা ‘কাস্টোমাইজ’ করে নেয় সামরিক বাহিনীর ব্যবহৃত অস্ত্রের সক্ষমতা পাওয়ার জন্য।
জাসিন্ডা আরডার্ন শনিবার (১৬ মার্চ) সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘এই বিষয়টি বন্ধ করাই প্রস্তাবিত সংস্কারের কেন্দ্রে থাকবে।’ নিউ জিল্যান্ডে ‘এ’ ক্যাটাগরির লাইসেন্স দিয়ে প্রায় দুই হাজার ভিন্ন ভিন্ন অস্ত্র কেনা যায়।
সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক বিশেষজ্ঞ ও গান পলিসি ডট অর্গ ওয়েবসাইটের প্রতিষ্ঠাতা ফিলিপ আলপার্স বলেছেন, বেশি গুলি ধরে এমন ম্যাগজিন যুক্ত করার মাধ্যমে আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রকে খুব সহজেই সামরিক বাহিনীর ব্যবহৃত অস্ত্রের পর্যায়ে উন্নীত করা যায়। সামরিক বাহিনীর ব্যবহৃত অস্ত্র বলতে সেসব অস্ত্রকে ধরা হয়, যাদের ম্যাগজিনে পয়েন্ট টু টু বোরের ১৫টি গুলি ধরে। আরও বেশি ক্যালিবারের বন্দুকের ক্ষেত্রে সাতটি গুলি ধরে এমন ম্যাগজিন যুক্ত অস্ত্রকেও ওই শ্রেণির হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
ফিলিপ আলপার্স বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী উচিত দ্রুত অস্ত্র আইন সংস্কারের উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা। তা না হলে বেসামরিক ব্যক্তিদের কাছে অস্ত্র বিক্রির সুযোগ উন্মুক্ত রাখার পক্ষে থাকা ব্যক্তি ও গোষ্ঠীটিগুলো বাধা দেওয়ার চেষ্টা করবে। নিউ জিল্যান্ডে ‘গান লবি’ খুবই শক্তিশালী। তাদের পক্ষে রয়েছে নিউ জিল্যান্ড ফার্স্ট পার্টি এবং এবং বেশ কিছু এলাকার সংসদ সদস্য। তাদের নির্বাচনি আসনের ভোটাররা অস্ত্র ব্যবহারের সুযোগ হারাতে অনাগ্রহী। শিকার ও খামার পাহারায় তারা অস্ত্র ব্যবহারের সুযোগ টিকিয়ে রাখতে চায়।
প্রধানমন্ত্রীর এই উদ্যোগের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন ক্রাইস্টচার্চের মেয়র লিয়ান ডালজেইল। তিনি বলেছেন, গত কয়েক বছর ধরে আমাদের দেশের অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন কঠোর হচ্ছে। কিন্তু এটা সত্যি যে, আমরা সাধারণ রাইফেল কিনে সেটাকে সামরিক বাহিনীর ব্যবহৃত আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রে পরিণত করতে দেওয়া মেনে নিতে পারি না।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here