গোবিন্দগঞ্জে টেন্ডার নিয়ে আ’লীগের দুগ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ১৪

0


টেন্ডার নিয়ে সংঘর্ষে আহত হয়েছেন সাংবাদিক মোয়াজ্জেম হোসেন

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় সরকারি জলাশয়ের ইজারার টেন্ডার জমা দেয়াকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুগ্রুপের মধ্যে এক সংঘর্ষের ঘটনায় এক সাংবাদিকসহ উভয়পক্ষের অন্তত ১৪ জন আহত হয়েছেন।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত উপজেলা পরিষদ চত্বরে জলাশয়ের টেন্ডার জমা দেয়ার জন্য বর্তমান সংসদ সদস্য মনোয়ার হোসেন চৌধুরী ও সাবেক সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ সমর্থিত লোকজন সেখানে অবস্থান নেয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতা জানান, একটি জলাশয়ের টেন্ডার উপজেলা পরিষদে জমা দেয়ার কথা ছিল বুধবার। এ জন্য বর্তমান সংসদ সদস্যের লোকজন সেখানে অবস্থান নেয়। অন্য কেউ যাতে টেন্ডার জমা দিতে না পারে সে জন্য তারা তৎপর ছিল। একপর্যায়ে সাবেক সদস্য আবুল কালাম আজাদের সমর্থিত লোকজন সেখানে গেলে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। প্রতিপক্ষের লোকজন যাতে টেন্ডার ফেলতে না পারে সে জন্য তারা বাধা দেয়। ফলে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে বুধবার টেন্ডার জমা দেয়া নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুগ্রুপের লোকজনের মধ্যে কথাকাটাকাটি এবং একপর্যায়ে হাতাহাতি ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। দুগ্রুপের নেতাকর্মীরা উপজেলা পরিষদের সামনে রাস্তার দুপাশে অবস্থান নেয়। এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

এতে সাংবাদিকসহ উভয়পক্ষের আন্তত ১৪ জন আহত হয়েছেন। আহতরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বিভিন্ন ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

আহতরা হলেন সাখোয়াত হোসেন (৩০), আলাতন শেখ (২৫), সাকিব মিয়া (২২), চঞ্চল মিয়া (৩৫), আইয়ুব আলী (২৬), সাংবাদিক মোয়াজ্জেম হোসেন (৪৮), সুইট মিয়া (২৫), রশিদ মিয়া (৪৬), হযরত আলী (৬০), সজল মিয়া (২৫), আউয়াল মিয়া (৪৪), মতিন মিয়া (৫০), আমিনুল ইসলাম (২৫) ও জাহিদুল ইসলাম (৪০)। তাদের বাড়ি গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভাসহ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে। তাদেরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি একেএম মেহেদী হাসান জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে সেখানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করছে।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here