প্রতিদিন সকালে দম্পতিদের যে ৮টি কাজ তাঁদের সম্পর্কের গভীরতা বাড়ায়

0


User Rating: 0 ( 0 votes )

কথায় বলে, সকালই দিনের পূর্বাভাস দেয়। সকাল যদি মধুর হয়, দিনটাই মধুর কাটবে। দিনের শুরুতে তাই সঙ্গীর সঙ্গে মধুর সময় কাটাতে পারেন। সকালের একটু মিষ্টি ভালোবাসা সারা দিন মন ভরিয়ে রাখবে। অনেকের সকালে ঘুম থেকে ওঠা মুশকিল। আবার উঠলেও কাজের তাড়াহুড়ো থাকে অনেকের। রোজ কাজের ব্যস্ততায় ডুবে যাওয়ার আগে সকালে যদি কয়েকটা মিনিট সঙ্গীকে দিতে পারেন, তবে সম্পর্কের মধ্যে শুভযোগ দেখতে পাবেন। বিশেষজ্ঞরা বলেন, সুখী দম্পতিরা প্রতিদিন সকালে কিছু কাজ করেন, যা তাঁদের সম্পর্কের গভীরতা বাড়ায়। জেনে নিন তাঁর কী করেন:

১. চোখে চোখ রাখুন

সুখী দম্পতিরা চোখে চোখ রেখে সকালে কিছুটা সময় কাটান। সকালে দাঁত মাজতে মাজতেই নাহয় সঙ্গীর চোখের দিকে একবার চেয়ে দেখুন। চোখে চোখ রেখে কিছু কথা সকালেই হোক। সকালের সঙ্গীর দিকে একটু হাত বাড়িয়ে স্পর্শ করেই দেখুন। সকালে মধুর এই স্পর্শ আর চোখে চোখ রাখার অনুভূতি সারা দিন আপনার মনকে উৎফুল্ল রাখবে। দিনটি হবে দুর্দান্ত।

২. একটু কাছে আসা

হাতে একদম সময় নেই? সকালে তড়িঘড়ি করে কাজে বেরোতে হবে। সঙ্গীর জন্য পাঁচটা মিনিটই নাহয় হাতে রাখুন। সকালে কোথাও বের হওয়ার আগে সঙ্গীকে একটু কাছে টানুন। কাছে এসে একবার বলেই ফেলুন, আই লাভ ইউ। মন্ত্রের মতো কাজ করবে। দিনটা নিশ্চয় মন্দ কাটবে না।

৩. একসঙ্গে ঘুম থেকে জাগা

সকালে সম্পর্কের যোগসূত্র তৈরি করাটা জরুরি। যদি দুজন একসঙ্গে ঘুম থেকে উঠতে পারেন তো দিন শুরু হয় দারুণভাবে। সকালে দুজন মিলে একটু আলাপ সেরে নিতে পারেন। দুজনের ব্যক্তিগত আলাপে দিনের সবকিছু ঠিকঠাক হবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

৪. একসঙ্গে এক কাপ চা

খাবার টেবিল বা বারান্দায় বসে দুজন একসঙ্গে এক কাপ চা বা কফি যদি দিনের শুরুতে খেতে পারেন। অনেক সুখী দম্পতি একসঙ্গে সকালের নাশতা আর চা খান। দৈনিক সকালে ১৫ মিনিটের এই সময় পাশাপাশি বসে দিনের সব পরিকল্পনা নিয়ে কথা বলতে পারেন।

৫. বিদায় চুমু

যখন কোথাও প্রিয়জনকে ছেড়ে যেতে হয়, মনের মধ্যে একটা শূন্যতা তৈরি হতে পারে। স্নেহ করস্পর্শ বা বিদায় চুমোতে সম্পর্ক আরও দৃঢ় হয়। বিশ্বাস আর অনুভব দৃঢ় হয়। সঙ্গীর প্রতি যত্নশীল হওয়ার একটি প্রতিশ্রুতি মনে খেলা করে।

৬. ডিভাইস বাদ

দৈনিক সকালে যদি হাতে ৫ থেকে ১০ মিনিট সময় থাকে, সুখী দম্পতিরা তা নষ্ট করেন না। ডিভাইসে মনোযোগ থাকলে ওই সময়টুকু প্রিয়জনকে দেওয়া হয় না। ওই ব্যক্তিগত সময়টুকুতে নাহয় দুজন আলোচিত কোনো খবর কিংবা কোনো বিষয় নিয়ে আলাপ সেরে নিন। একসঙ্গে এক কাপ চা খেয়ে নিন। একান্ত কিছু সময় নাহয় নীরবেই কাটুক। ওই সময়টুকু দ্রুত কেটে যাক, তা কি আর চাইবেন?

৭. সকালের কাজ ভাগাভাগি

সুখী দম্পতিরা পরস্পরের জন্য খুব টান অনুভব করেন। সন্তান থাকলে তাকে প্রস্তুত করা, স্কুলে নিয়ে যাওয়ার মতো কাজ থাকে সকালে। কাজগুলো কাউকে একা না দিয়ে ভাগাভাগি করে নিতে পারেন। পরিবার ও অভিভাবকের দায়িত্ব সুখী দম্পতিরা একজোট হয়েই পালন করেন। সকাল থেকে দুজনে একজোট হয়ে যদি কাজ করতে পারেন, সারা দিনটাই যাবে দুর্দান্ত।

৮. প্রাণখোলা হাসি

সকালটা শুরু হোক হাসিতে। সারাটা দিন হাসতে থাকুন। সুখী দম্পতিরা তা-ই করেন। সকালে সঙ্গীর মুখে হাসি ফোটানোর চেষ্টা করুন। বাইরে যাওয়ার সময় সঙ্গীর হাসিমুখ কিংবা হাসিমুখে বিদায় জানানো সুখী দাম্পত্যের প্রতীক।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here