প্রযুক্তি আবিষ্কারের পরপরই চাষীদের কাছে দিতে হবে: কৃষিমন্ত্রী

0


বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটে প্রযুক্তি প্রদর্শনী উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন কৃষিমন্ত্রী কৃষিবিদ ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক

কৃষিমন্ত্রী কৃষিবিদ ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, প্রযুক্তি আবিষ্কারের পর তা যদি মাঠ ও চাষী পর্যায়ে না যায় তাহলে উদ্ভাবনে কোনো লাভ নেই। এ দায়িত্বটি কৃষি বিজ্ঞানীদেরকেই নিতে হবে। উৎপাদিত প্রযুক্তির কতটি চাষী পর্যায়ে গিয়েছে তা দেখা উচিত।

রোববার দুপুরে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের কাজী বদরুদ্দোজা মিলনায়তনে প্রযুক্তি প্রদর্শনী উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রোববার ও সোমবার দু’দিনব্যাপী কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট বারি প্রযুক্তি প্রদর্শনী ২০১৯ শুরু হয়েছে।

কৃষিবিদ ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ভুট্টা এক সময়ে দেশের কোনো ফসল ছিল না, বর্তমানে এটি এখন ফসল এ পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশে ৪০ লাখ মেট্রিক টন ভুট্টা উৎপাদন হয়, আর আমদানি করতে হয় বিদেশ থেকে ৩৫ লাখ মেট্রিক টন। পোল্ট্রি শিল্পের বিকাশ ঘটেছে তাই ভুট্টা আমদানি করতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, কৃষি বিজ্ঞানীদেরকে সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে । আমরা আগামী তিন বছর পর এক টন ভুট্টাও আমদানি করব না। ২৫ বছর আগে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট এ দেখলাম পেয়ারা ও লেবুর সংমিশ্রণে চমৎকার ফ্লেভার হয়েছে। জেলির উজ্জ্বল রং হয়েছে। এখন দেখতে হবে এ গবেষণা মানুষ কীভাবে গ্রহণ করেছে। কৃষিবিদদের পদোন্নতির জন্য জ্যেষ্ঠতা, দক্ষতা, ব্যবস্থাপনা, ক্ষমতা দেখতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, বড় রাজনৈতিক দল বিএনপির কথাগুলোর মধ্যে অনেক অসংলগ্নতা রয়েছে। তারা কী কর্মসূচি নিচ্ছে তা বুঝা যায় না। ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী টেলিফোনে ৩৮ মিনিট কথা বলে নির্বাচনে অংশগ্রহণের কথা বলেছিলেন। তিনি আহ্বান জানিয়েছিলেন কীভাবে নির্বাচন হবে তা নিয়ে আসুন কথা বলি।

তিনি বলেন, কেন নির্বাচনে বিএনপি এলাকায় পোস্টার দেয় না, লিফলেট দেয় না, ভোট চায় না? নির্বাচনে যে তাদের কী কৌশল ছিল তা বুঝা যায় না। আজও তারা নির্বাচন নিয়ে সমালোচনা করছে।

কৃষি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য কৃষিবিদ আব্দুল মান্নান বলেন, আগে কৃষি বিষয়ের শিক্ষার্থীরা শিক্ষক, গবেষক হতে চাইতেন। বর্তমানে তারা চান ব্যাংক ও অন্যান্য পেশায় যেতে। এটি অনুধাবন করতে হবে। এ ধারণা ঘোরাতে হবে। ২০০৮ সালে কৃষিবিদদের প্রণোদনা নিয়মিত হয়নি। বছরে এক মাসের প্রণোদনা দিতে হবে। উৎপাদন করলেই হবে না এর ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে হবে।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের মহাপরিচালক ড. আবুল কালাম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের পরিচালক ড. মদন গোপাল সাহা, ড. মো. আব্দুল ওয়াহাব, ড. মোহাম্মদ লুৎফর রহমান প্রমুখ।

প্রযুক্তি প্রদর্শনীতে কাঁঠাল ছোলা যন্ত্র, সবজি ধৌত করা যন্ত্র, ধাপে ধাপে গুটি ইউরিয়া সার প্রয়োগের যন্ত্রসহ নানা ধরনের প্রযুক্তি প্রদর্শনীর বিভিন্ন স্টলে স্থান পায়।

প্রদর্শনী উদ্বোধন এর আগে মন্ত্রী বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট এর মাঠে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি ম্যুরাল উদ্বোধন ও গাছের চারা রোপণ করেন।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here