ছবির কপিরাইট Getty Images

 

আফগানিস্তান তাদের মাত্র ২০ বছরের লেগ স্পিনার রশিদ খানকে জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক নিয়োগ করেছে। সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশের সাথে টেস্ট ম্যাচই হবে অধিনায়ক হিসাবে তার প্রথম পরীক্ষা।

রশিদ খান ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটেই – টি২০, একদিনের ম্যাচ এবং টেস্ট ক্রিকেটে – দলের নেতৃত্ব দেবেন।

বিশ্বকাপের আফগানিস্তানের হতাশাজনক পারফরমেন্স এবং সাম্প্রতিক সময়ে ভেতর নানা কোন্দলের প্রেক্ষাপটে নাটকীয় এই সিদ্ধান্ত এলো। বিশ্বকাপে তাদের নয়টি ম্যাচেই হেরেছে আফগানিস্তান।

বিশ্বকাপের ঠিক আগেই হঠাৎ করে আসগর আফগানকে অধিনায়কের পদ থেকে সরিয়ে নিয়ে গুলবুদিন নাইবকে ৫০ ওভারের ম্যাচের জন্য দলের অধিনায়ক করা হয়। টেস্ট দলের জন্য অধিনায়ক করা হয় রহমত শাহকে।

দলের এই পরিবর্তন নিয়ে কোচ ফিল সিমন্সের সাথে চরম বিরোধ তৈরি হয় আফগান দল নির্বাচকদের।

এখন টি২০ দলের পাশাপাশি সব ফরম্যাটেই রশিদ খান অধিনায়ক হচ্ছেন।

শনিবারের এই সিদ্ধান্তের অর্থ হলো রহমত শাহ একটি ম্যাচেও অধিনায়কত্ব না করেই বরখাস্ত হলেন।

বয়স কম হলেও রশিদ খান নিঃসন্দেহে এ মুহূর্তে আফগানিস্তানের সবচেয়ে নামী-দামী ক্রিকেটার।

বর্তমানে তিনি আইসিসির টি২০ ক্রিকেট র‍্যাংকিংয়ে এক নম্বরে। তাছাড়া, আইপিএল সহ বিশ্বের নানা টি২০ টুর্নামেন্টে তিনি ইতিমধ্যেই বড় তারকা হয়ে উঠেছেন।

২০১৭ সালে টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর আফগানিস্তান দুটো ম্যাচ খেলেছে। দুটোতেই দলে ছিলেন রশিদ খান। এছাড়া, আফগানিস্তানের হয়ে এখন পর্যন্ত তিনি ৬৮টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ এবং ৩৮টি টি২০ ম্যাচ খেলেছেন।


বিশ্বকাপের দল গঠণ নিয়ে কোচ ফিল সিমন্সের সাথে আফগান নির্বাচকদের বিরোধ চরমে উঠেছিল

আফগান ক্রিকেটে কোন্দল

বিশ্বকাপের ঠিক আগে কোচ ফিল সিমন্সের সাথে আফগান ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাচক দৌলত আহমাদজাইয়ের বিরোধ চাপা থাকেনি।

এমনকী বিশ্বকাপ চলার সময়েও দলের দুর্বল পারফরমেন্সের জন্য আহমাদজাই প্রকাশ্যে কোচ সিমন্সকে দায়ী করেন।

পাল্টা প্রতিক্রিয়ায় ফিল সিমন্স বলেন, “বিশ্বকাপের প্রস্তুতিতে এবং আসগর আফগানকে বরখাস্ত করার পেছনে আহমাদজাইয়ের ভূমিকা” তিনি আফগান জনগণকে খোলাসা করে জানাবেন।

সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশের সাথে একটি টেস্ট টেস্ট ম্যাচ খেলবে আফগানিস্তান। সেটিই হবে অধিনায়ক হিসাবে রশিদ খানের প্রথম পরীক্ষা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here