মারাত্মক ঝুঁকিতে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্যবহারকারীরা

0


মারাত্মক ঝুঁকিতে আছেন ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্যবহারকারীরা। ডিফল্ট ব্রাউজার হিসেবে যারা এই ব্রাউজারটি ব্যবহার করছেন তাদেরকে সতর্ক করেছেন খোদ মাইক্রোসফটের নিরাপত্তা প্রধান ক্রিস জ্যাকসন।

এক ব্লগপোস্টে তিনি লিখেছেন, পুরনো ওয়েব ব্রাউজার এক্সপ্লোরার ব্যবহার বন্ধের এখনই মোক্ষম সময়। কেননা ব্রাউজটি এখন মারাত্মক নিরাপত্তা ঝুঁকিতে রয়েছে। ওই ব্লগপোস্টে মাইক্রোসফট গ্রাহকরা এখনও তার কাছে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার নিয়ে বিস্তর প্রশ্ন করেন। যখন বেশিরভাগ ইন্টারনেট ব্যবহারকারী গুগল ক্রোম, ফায়ারফক্স বা মাইক্রোসফট এজ বেছে নিয়েছেন তখনও অনেকেই কিছু কিছু কাজে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্যবহার করছেন। তিনি লিখেছেন, ১৯৯৫ সালে আত্মপ্রকাশ করে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার। এরপর ওয়েব ব্রাউজারটির নতুন কোনও সংস্করণ চালু করা হয়নি। সফটওয়্যারটির ক্রমাগত ব্যবহার ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

গুগল ক্রোম ও অ্যাপলের সাফারি বাজার দখলের পাশাপাশি ব্যবহারকারী ও ডেভেলপারদের কাছে দিন দিন ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের আবেদন ফিকে হয়ে আসতে শুরু করে। ২০১৬ সালে এক্সপ্লোরারকে টপকে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েব ব্রাউজার হয়ে ওঠে গুগল ক্রোম। কিন্তু তারপরও থেমে থাকেনি ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের ব্যবসায়িক ব্যবহার। এদিকে ২০১৫ সালে অবমুক্তির পর থেকেই এক্সপ্লোরার বাদ দিয়ে মাইক্রোসফট এজ ব্যবহারে গ্রাহকদের উৎসাহিত করে আসছে মাইক্রোসফট। তারপরও পরসিংখ্যান অনুযায়ী, ইন্টারনেটে প্রবেশের ক্ষেত্রে যুক্তরাজ্যের প্রায় ৫.৫ শতাংশ ভোক্তাই ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্যবহার করেন। এমন ব্যবহারকারীদের সতর্ক করে জ্যাকসন বলেন, নতুন ওয়েবের মান অনুযায়ী ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারে আমরা কোনও সেবা দিচ্ছি না। যদিও অনেক ওয়েবসাইট এই ব্রাউজারে বেশ চলছে। পুরনো সফটওয়্যারের সমর্থনে যারা এখনও ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্যবহার করছেন তারা কারিগরি ঝুঁকিতে রয়েছেন।

২০২০ সালের জানুয়ারির পর থেকে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার পুরোপুরি বন্ধ করে দেবে মাইক্রোসফট।

সূত্র: দ্য টেলিগ্রাফ 



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here