সর্বস্তরে নারীবান্ধব কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে

0


প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগের ফলে সব ক্ষেত্রে নারীর প্রভূত উন্নয়ন ও অগ্রগতি সাধিত হয়েছে।

দেশের বিভিন্ন আদালতে নারী বিচারক ও আইনজীবীদের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটা সত্যিই আশাব্যঞ্জক। বুধবার বিকালে সুপ্রিমকোর্ট গার্ডেনে নারী আইনজীবী আয়োজিত ‘আন্তর্জাতিক নারী দিবস’ উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি এসব কথা বলেন।

প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন আরও বলেন, নারীদের অবদানের স্বীকৃতি প্রদান এবং তাদের প্রতি সম্মান জানানোর লক্ষ্যে ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত হয়। দিনটিকে আমি অত্যন্ত গুরুত্ববহ এবং মর্যাদাপূর্ণ বলে মনে করি। নারী-পুরুষের সমতাভিত্তিক অধিকার নিশ্চিত করতে বিশ্ববাসী আজ ঐক্যবদ্ধ।

এ দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে নারীদের এগিয়ে চলতে হবে এবং নেতৃত্বদানে বিকশিত হতে হবে। এজন্য সর্বস্তরে নারীবান্ধব কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, নারীর অধিকার আদায় এবং সমমর্যাদার বিষয়টি আমাদের রাষ্ট্রীয় চিন্তা ও নীতিতেও প্রতিভাত হচ্ছে।

সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, নারীদের আন্তরিক প্রচেষ্টা এবং রাষ্ট্রের বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে বর্তমান জেন্ডার ইক্যুলিটি অ্যান্ড জেন্ডার জাস্টিসের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অন্য উন্নয়নশীল দেশের কাছে রোল মডেল হতে পারে। দেশের বিচার বিভাগ নারী সংক্রান্ত ইস্যুতে অনেক সংবেদনশীল, যা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রায়ে প্রতিফলিত হয়েছে।

পারিবারিক সহযোগিতা ও ইতিবাচক সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি বিচার বিভাগ ও আইন পেশায় নারীর বলিষ্ঠ পদচারণা বৃদ্ধি করতে পারে। কাজেই ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে হলে নারীদের নবউদ্যমে পেশাদারিত্ব অর্জনের মাধ্যমে নেতৃত্ব দেয়ার সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে ইতিমধ্যে নারীরা নিজদের সক্রিয়ভাবে সম্পৃক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন।

অনুষ্ঠানে হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি নাইমা হায়দার, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন প্রমুখ বক্তব্য দেন।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here