২ লাখ টাকার বিনিময়ে হত্যাকাণ্ড: যশোরে আটক ২

0


যশোরের ব্যবসায়ী মহিদুল ইসলাম শাফাকে হত্যায় অভিযুক্তদের পেছনে খরচ করতে হয়েছে মাত্র দুই লাখ টাকা। যশোর ডিবি পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্তরা স্বীকার করেছে, এই পরিমাণ অর্থ নিয়েই তারা গলা কেটে হত্যা করেছিল শাফাকে। রবিবার (৩ জানুয়ারি) বিকেলে যশোরের ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত রানা মোল্লা (১৯) ও রাকিবকে (১৯) গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পাশাপাশি হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটিও উদ্ধার করা হয়েছে।
গত পয়লা জানুয়ারি সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে শহরের ঈদগাহ মোড়ে এইচএন এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মালিক মহিদুল ইসলাম শাফা হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। গলায় ছুরির পোচ দিয়ে তাকে হত্যা করে। নিহত সাফা যশোরের শার্শা উপজেলার ধান্যখোলা গ্রামের নবিস উদ্দিনের ছেলে। তিনি যশোর শহরের খালধার রোডে ভাড়া বাসায় থাকতেন।
সোমবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ডিবি কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়। সেখানে যশোর ডিবি পুলিশের ওসি মনিরুজ্জামান বলেছেন, ব্যবসায়িক দ্বন্দ্বের জেরে দুই লাখ টাকার চুক্তিতে ভাড়াটে খুনিদের দিয়ে ব্যবসায়ী শাফাকে পয়লা জানুয়ারি সন্ধ্যায় খুন করানো হয়। এ ঘটনায় পরদিন অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে কোতোয়ালি থানায় (মামলা নম্বর-০২/০২.০১.১৯) দায়ের হয়।
তিনি আরও জানিয়েছেন, যশোরের পুলিশ সুপার মামলাটি তদন্তের জন্যে ডিবিতে স্থানান্তর করেন। এরপর তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে হত্যাকারীদের শনাক্ত করা হয়। আটক হয় রানা ও রাকিব। আটককৃতদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী শহরের গাড়িখানা রোড এলাকা থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা দুই লাখ টাকার চুক্তিতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানোর কথা স্বীকার করেছে।
ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যান্যদের পরিচয়ও পাওয়া গেছে। তাদের আটকে পুলিশি অভিযান চলছে বলে জানিয়েছেন ওসি মনিরুজ্জামান। আটক রানা ও রাকিব যথাক্রমে যশোর শহরের শংকরপুর ছোটনের মোড় এলাকার আকরাম মোল্লা ও লিটন বাবুর ছেলে।



LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here